রবিবার ১৬ মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

Weekly Bangladesh নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত
নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত
নিউইয়র্ক সিটিতে আইন-শৃংখলার মারাত্মক অবনতি

বাংলাদেশীসহ একদিনে গুলিবিদ্ধ ৬৪ ॥ নিহত ১১

বাংলাদেশ রিপোর্ট :   |   শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০

বাংলাদেশীসহ একদিনে গুলিবিদ্ধ ৬৪ ॥ নিহত ১১

নিউইয়র্ক সিটিতে হঠাৎ করে আইন শৃংখলা পরিস্থিতির মারাত্নক অবনতি ঘটেছে। গত ৪ জুলাই স্বাধীনতা দিবসের দিনে সহিংস গুলির ঘটনা ঘটেছে ৪৪টি। এসব সহিংসতায় ৬৪জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। প্রাণ হারিয়েছেন ১১জন। মুমূর্ষ অবস্থায় ৭ জন আছেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। জ্যামাইকায় বাংলাদেশী ২৮ বছর বয়সী এক যুবক একই দিন সন্ধ্যায় নিজ বাসার সামনে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। জ্যামাইকা হিলসের হাইল্যান্ড ও গথিক এভিন্যুও মাঝে ১৬৮ প্লেসে সন্ধ্যা ৮টার দিকে গুলিবিদ্ধ হওয়া যুবকের বাড়ী বৃহত্তর বরিশালে। তিনি স্ত্রী এক সন্তান ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যসহ বাংলাদেশী মালিকাধীন একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। সাইকেলে চালিয়ে এসে এক যুবক প্রকাশ্যে গুলি ছুড়ে তারদিকে। হাতে গুলিবিদ্ধ বাংলাদেশী যুবককে স্থানীয় জ্যামাইকা হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। তিনি এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ঘটনার পর পর পুলিশ পুরো এলাকা ঘিরে ফিলে। বন্ধুকধারী আততায়ীকে পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি বলে জানা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে পূর্ব শত্রুতার জেরে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন বাংলাদেশী যুবক । এ ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।

নিউইয়র্ক সিটি দীর্ঘদিন লকডাউনের পর যখন ধাপে ধাপে খুলছে। প্রাণ ফিরছে সর্বত্র। তখন সিটির পাঁচ বরোতেই বন্দুক সহিংসতা ও প্রাণহানির ঘটনায় জনমনে ছড়িয়ে পড়েছে আতঙ্ক, উদ্বেগ-উৎকন্ঠা। শুধু গুলাগুলির ঘটনাই নয় গতমাস থেকে আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে খুন, ডাকাতি, চুরি, রাহাজানি সহ সবধরণের অপরাধ কর্ম। গত সপ্তাহে নিউইয়র্ক সিটিতে গুলির ঘটনা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় তিনগুণ বেশী। ২৯ জুন থেকে ৫ জুলাই রোববার পর্যন্ত ৭৪টি ঘটনায় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ১০১ জন। ২০১৯ এ সময় ২৬টি গুলির ঘটনায় ৩৩জন আহত হন নিউইয়র্ক সিটিতে। গত সপ্তাহে গুলির ঘটনা ছাড়াও খুন হয়েছে ১৮ জন। এর আগের সপ্তাহেও ৬৩টি সহিংস গুলির ঘটনা ঘটেছে। এ বছরের প্রথম ৫ মাসে সহিংস গুলির ঘটনা ঘটে ৪০০টি। জুন মাসে হঠাৎ বেড়ে গিয়ে একমাসে এ সংখ্যা দাঁড়ায় ২০৫টিতে। ১৯৯৬ সালের পর সহিংস গুলির ঘটনা এতোটা ব্যাপকতা লাভ করেনি কখনো। সে বছর রেকর্ড সংখ্যক ২৩৬টি গুলির ঘটনা ঘটে। নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগ চলতি বছরের প্রথম ৫ মাসে ৪০ হাজার অপরাধীকে গ্রেফতার করেছে। তন্মধ্যে সহিংস গুলির ঘটনায় গ্রেফতার করা হয় ১ হাজার ৭০০জনকে।

নিউইয়র্ক সিটিতে অতীতে বিভিন্ন সময় অপরাধ প্রবণতা বৃদ্ধি পায়। কখনো কখনো অপরাধীদের স্বর্গ রাজ্যেও পরিণত হয় বিশ্বের রাজধানীখ্যাত এ নগরী। বিশেষ করে মাদক ব্যবসায়ী ও মাফিয়াদের কারণে ভেঙ্গে পড়ে আইন শৃংখলা পরিস্থিতি। ২০১৯ সালে সিটিতে ১৯৫টি খুনের ঘটনা ঘটেছে। অতীতে ১৯৯১ সালে এক বছরে খুনের ঘটনা ঘটে ২ সহস্রাধিক। ভয়ঙ্কর সে সময় কঠোর হস্তে অপরাধীদের দমন করেন তৎকালীন মেয়র। পুলিশ বাহিনীর শক্তি কৌশল বৃদ্ধি করে অপরাধ দমন করা হয়। গত সপ্তাহে সহিংস গুলির ঘটনা ও প্রাণহানিতে সিটি জুড়ে তোলপাড় চলছে।

ব্রঙ্কসে রাস্তা অতিক্রম করার সময় গাড়ির কাঁচ নামিয়ে কাছ থেকে গুলি করে হত্যা করা হয় ব্রুকলীনে বসবাসকারী এন্থনী রবিনসন (২৯) কে। এসময় বাবার হাত ধরে হাঁটছিলো তার ৫ বছরের মেয়ে। গুলি লাগার পর রাস্তায় লুটিয়ে পড়ে রবিনসন। হত্যাকান্ডের মর্মান্তিক এ ভিডিও সংবাদ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ায় তোপের মুখে পড়েছেন মেয়র বিল ডি ব্লাজিও। ব্রুকলীনের ব্রাউনস ভিল এলাকায় প্রকাশ্যে অপর এক ঘটনায় দিবালোকে গুলিতে নিহত হয়েছেন ২০ বছরের এক যুবক। এসময় একজন মহিলাও গুরুতর আহত হন। এ ভিডিও দৃশ্যও ঘুরপাক খাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। রোববারের পরও থেমে নেই সহিংসতা।
কেন আইন শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি?

নিউইয়র্ক সিটির আইন শৃংখলা পরিস্থিতির সহসাই অবনতি ঘটতে পারে বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলন চলাকালে লূট-তরাজ থেকে বিষয়টি আঁচ করা যাচ্ছিল। মেয়র বিল ডি ব্লাজিও গত সোমবার সিটি হলের নিয়মিত প্রেস ব্রিফিংয়ে ভয়ংকর এ সহিংসতায় জন্য করোনা, লকডাউন ও আর্থিক মন্দাকে দায়ী করেন। এ বিষয়ে সাংবাদিকরা তাকে জর্জরিত করেন প্রশ্নবানে। অপরাধ বৃদ্ধি প্রসঙ্গে নিউইয়র্ক পুলিশ কমিশনার ডারমট শিয়া বলেছেন ভিন্ন কথা। তার মতে চলমান সহিংসতার আংশিক দায় হতে পাওে করোনা ভাইরাসের। কিন্তু মূল কারণ পুলিশ বিভাগের বাজেট হ্রাস। গত ১৫ জুন থেকে সাদা পোষাকধারী ৬০০ এন্টি ক্রাইম পুলিশ সদস্যের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়া। যারা ছদ্মবেশে অপরাধীদের সনাক্ত করতেন। অপরাধীদের জামিন সংস্কারের নামে ২ হাজার ৫০০আসামীকে করোনাকালে রাইকার আইল্যান্ড জেলখানা থেকে ছেড়ে দেয়ার ঘটনাকে দায়ী করেন তিনি। তারমতে এসব অপরাধীরা এখন রাস্তায় এবং তারাই সমাজে অপরাধ ঘটাচ্ছে। অপরদিকে মেয়রের একই অনুষ্ঠানে নিউইয়র্ক পুলিশ প্রধান টেরেন্স মনাহন বলেন, মিনিয়াপলিসে জর্জ ফøয়েড হত্যাকান্ডের পর আসামীদের জামিন সংস্কার, পুলিশী আচরণ বিধি বিল, ক্রিমিনাল জাষ্টিস পদ্ধতিতে পরিবর্তন, সিটি কাউন্সিল কর্তৃক পুলিশের ১ বিলিয়ন ডলার বাজেট কর্তন পুলিশকে জন বিরোধী শিবিরে ঠেলে দিয়েছে। এতে পুলিশের মনোবল নষ্ট হতে চলেছে। দ্বিধায় পড়ছে পুলিশ এখন অপরাধীকে গ্রেফতার করতে । এসব কারণে পুলিশ অফিসাররা নিজেরাই আতঙ্কিত বলে মন্তব্য করেন তিনি।
প্রায় নব্বুই লাখ নিউইয়র্কবাসীর জান-মালের প্রাথমিক নিরাপত্তা বিধানের দায়িত্ব পুলিশ বিভাগের। পুলিশি আচরণে ত্রুটি আছে। আছে বাড়াবাড়ি। তারপরও ১৮৪৫ সালে প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘ ১৭৫ বছর ধরে মানুষের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে আসছে নিউইয়র্ক পুলিশ। এ বাহিনীর ৩৮ হাজার নিয়মিত অফিসার ও ১৯ হাজার বেসামরিক কর্মকর্তা কর্মচারীর উপরই ভরসা নগরবাসীর। সিটি জুড়ে ৭৭টি থানা, ১২টি ট্রানজিট ও ৯টি হাউজিং সার্ভিস রয়েছে পুলিশ বিভাগের।

প্রায় ৬ বিলিয়ন ডলার বাজেটের এ বাহিনী শুধু যুক্তরাষ্ট্রই নয় গোটা বিশ্বে সর্ববৃহৎ আইন শৃংখলা রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠান। পুলিশের দেড় সহস্র পদে নূতন নিয়োগ বাতিল করা হয়েছে সম্প্রতি। অপরদিকে যাদের চাকুরীর বয়স হয়েছে এমন পুলিশ অফিসাদেরকে অবসরে যেতে উৎসাহিত করা হচ্ছে। এসব প্রক্রিয়া সিটিবাসীকে নিরাপত্তা ঝুকির মধ্যে ফেলবে বলে আশঙ্কা নিরাপত্তা বিশ্লেষকদের। সহিংসতা নিয়ে উৎকন্ঠা প্রকাশ করেছেন গভর্নর এন্ড্রু কুম্যোও। এনিয়ে তিনি রাজ্যেও প্রধান বিচারক, স্টেট পুলিশ, ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী ও মেয়র অফিসকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিচ্ছেন বলে প্রাত্যহিক দেয়া প্রেস ব্রিফিংয়ে উল্লেখ করেছেন।

নিউইয়র্ক সিটির আইন শৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতির জন্য সিটি এবং নিউইয়র্ক স্টেট প্রশাসনের কঠোর সমালোচনা করেছেন সাবেক পুলিশ কমিশনার বিল ব্রাটন। তিনি বলেন, নিউইয়র্ক পুলিশ বিভাগকে হেয় প্রতিপন্ন করে “ক্রাইম ভাইরাস” সৃষ্টি করা হচ্ছে। তিনি বলেন, এতোদিন করোনা ভাইরাসে মানুষ মরেছে। আর এখন মরছে ক্রাইম ভাইরাসে। সিটি এখন দুরাবস্থার মধ্যে। দুভার্গ্যবশত ভবিষ্যতে আরো মাশুল গুনতে হবে সিটিবাসীকে। মেয়র রুডি জুলিয়ানীর আমলের পুলিশ কমিশনার স্থানীয় টেলিভিশন চ্যানেলে সাক্ষাতকারে এসব কথা বলেন। তিনি বর্তমান মেয়র ও তার প্রশাসনের কঠোর সমালোচনা করেন।

একই দিন শিকাগো সহ যুক্তরাস্ট্রের বিভিন্ন শহরে গুলাগুলির ঘটনায় অনেক প্রাণহানি ঘটে। শিকাগো সিটিতে বন্দুক সহিংসতায় নিহত ৫ জন এবং ৭২ জন আহত হয়েছে। নিউইয়র্ক ও শিকাগোতে অপরাধ দমনে নূতনভাবে চিন্তা করার পরামর্শ দিয়েছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। এক টুইটার বার্তায় একথা জানান তিনি।

Facebook Comments Box

Posted ৮:৫০ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, ১১ জুলাই ২০২০

Weekly Bangladesh |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
Dr. Mohammed Wazed A Khan, President & Editor
Anwar Hossain Manju, Advisor, Editorial Board
Corporate Office

85-59 168 Street, Jamaica, NY 11432

Tel: 718-523-6299 Fax: 718-206-2579

E-mail: weeklybangladesh@yahoo.com

Web: weeklybangladeshusa.com

Facebook: fb/weeklybangladeshusa.com

Mohammed Dinaj Khan,
Vice President
Florida Office

1610 NW 3rd Street
Deerfield Beach, FL 33442

Jackson Heights Office

37-55, 72 Street, Jackson Heights, NY 11372, Tel: 718-255-1158

Published by News Bangladesh Inc.