সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Weekly Bangladesh নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত
নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত

পিছিয়ে নেই বাংলাদেশীরাও : বেকারত্ব ও আর্থিক মন্দায়

যুক্তরাষ্ট্রে বড় ৩০ শহর ছাড়ছে মানুষ

ডা. ওয়াজেদ খান   |   বৃহস্পতিবার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

যুক্তরাষ্ট্রে বড় ৩০ শহর ছাড়ছে মানুষ

যুক্তরাষ্ট্রে বড় ৩০টি শহরের বিপুল সংখ্যক মানুষ নিজ বসতি ছাড়ছেন। ছুটছেন অন্য শহর উপশহরে। শহর বা রাজ্য বদলের এ ধারা এদেশে নূতন কিছু নয়। কিন্তু বৈশ্বিক মহামারি করোনাকালে সৃষ্ট আর্থিক মন্দা ও বেকারত্বের কারণে এ হার রেকর্ড সংখ্যক বৃদ্ধি পেয়েছে শহর ছাড়ার এ হার। শহর ছাড়ার দৌড়ে পিছিয়ে নেই বাংলাদেশী-আমেরিকানরাও। গত মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে বেকারত্বের হার বেড়ে দাঁড়ায় ১৩.৩ শতাংশে। এসময় প্রতি পাঁচজনে একজন অর্থাৎ ২২শতাংশ যুবক এক শহর ছেড়ে পাড়ি জমায় অন্য শহরে। যাদের ৩ শতাংশই স্থায়ীভাবে ছেড়ে গেছে নিজ শহর। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রতিনিয়ত উন্নত জীবন জীবিকার অন্বেষায় মানুষ অভিবাসী হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে। এদেশের অভ্যন্তরেও চলে অভিবাসন প্রক্রিয়া। একই রাজ্যের এক শহর থেকে আরেক শহরে। আবার এক রাজ্য ছেড়ে মানুষ চলে যায় অন্য রাজ্যে। উন্নত জীবন জীবিকার আকাঙ্খা ও স্বপ্ন বরাবরই কাজ করে এ ছুটে চলার পেছনে। শুধুমাত্র ২০১৮সালে ৩ কোটি ২৫ লাখ আমেরিকান শহর বদল করেন। এই হার দেশের মোট জনসংখ্যার এক দশমাংশ। অতীতে শহর বদলের এ হার ছিলো আরো বেশী। ১৯৯৮ সালে ১৬ শতাংশ আমেরিকান এক শহর ছেড়ে অন্য শহরে শুরু করে নূতন জীবন। এক্ষেত্রে একই রাজ্যের অন্য শহর বেছে নেয় ৮৫ শতাংশ মানুষ। বাকি ১৫ শতাংশ মানুষ চলে যায় অন্য রাজ্যে। ২০১৮ সালে সবচেয়ে বেশী মানুষ নূতন বসতি শুরু করে ফ্লোরিডায়।

যে ৩০টি শহর ছাড়ছে মানুষঃ আর্থিক মন্দা, বেকারত্ব ছাড়াও অন্যান্য কারণে ৩০টি শহর ছাড়ছেন আমেরিকানরা। সাম্প্রতিক কালে শহর ছাড়ার শীর্ষ তালিকায় রয়েছে ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো। আকর্ষনীয় বেতনের চাকরির জন্য অনেকে এ শহরে ছুটে যেতো এক সময়। এখন সে মোহ কেটে গেছে। শহরটিতে জীবন ধারণের ব্যয় আকাশচুম্বী। বাড়ি ভাড়া অত্যধিক। একটি বাড়ি ক্রয়ের জন্য শত মানুষ পড়ছে হুমড়ি খেয়ে। এখানে একটি সাধারণ বাড়ির বিক্রয় মূল্য ১.৪ মিলিয়ন ডলার। ফলে এ শহর থেকে পালিয়ে হাঁফ ছেড়ে বাঁচতে চাচ্ছেন বাসিন্দারা। এজন্য ছুটছেন পশ্চিম তীরের শহর স্যাক্রামেন্টো ও সিয়াটল শহরে।

বিশ্বের রাজধানী বলে খ্যাত নিউইয়র্ক সিটি বিশ্বে সবচেয়ে ব্যয়বহুল নগরী। এই নগরীতে প্রতিটি ক্ষেত্রেই চলে প্রতিযোগিতা। প্রায় ৯০ লাখ মানুষের এ শহরে জমির মূল্য পৃথিবীর যে কোন শহরের চেয়ে অনেক বেশী। এখানে মধ্যবিত্ত পরিবারের আয়ের ৮০ শতাংশই চলে যায় বাড়ি ভাড়ায়। বাড়ির মূল্যও ধরা ছোঁয়ার বাইরে। যুক্তরাষ্ট্রের সেন্সাস ডাটা অনুযায়ী নিউইয়র্ক সিটি ছেড়ে প্রতিবছর প্রায় ৩ লাখ মানুষ বসতি গড়ে উপশহরে। করোনাকালে এ সংখ্যা ৪৪ শতাংশ বেড়ে গেছে। এছাড়া ২ লাখ মানুষ চলে যায় অন্য রাজ্যে। কিন্তু চলতি বছর কোভিড-১৯ এর কারণে প্রথম দিকেই বেকার হয়ে পড়ে শহরটির ৮লাখ মানুষ। বন্ধ হয়ে যায় ব্যবসায়-বাণিজ্য। এসব কারণে এপ্রিল, মে ও জুন মাসে স্বাভাবিক প্রবাহের চেয়ে অতিরিক্ত ৩ লাখ মানুষ চলে গেছে নিউইয়র্ক সিটি ছেড়ে অন্য শহরে। অনেকে আবার পাড়ি জমিয়েছেন অন্য রাজ্যে।

ক্যালিফোর্নিয়ার লস এঞ্জেলেস এর বাড়ি, বাড়ি ভাড়া সহ প্রপার্টি ট্যাক্সের উচ্চ মূল্য, ট্রাফিক জ্যাম, ব্যয় বহুল জীবন অতিষ্ঠ করে তুলেছে শহরটির মানুষকে। প্রায় ৪০ লাখ মানুষের এ নগরীতে চলছে একধরণের অস্থিরতা। এসব কারণে নগরীর মানুষ ছুটছে কাছাকাছি শহর স্যান-ডিয়াগো ও ফোনিক্সের দিকে।

শিকাগো শহরের মতো রাজধানী শহর ওয়াশিংটন ডিসিতে সুযোগ আছে চাকরির। বিশেষ করে ব্যাচেলর ডিগ্রীধারী তরুণদের সরকারি চাকুরিতে যারা আগ্রহী তাদের জন্য। কিন্তু প্রপার্টি ট্যাক্স, বাড়ি ভাড়া ও খাবারের উচ্চ মূল্য শহরটিকে করে তুলছে স্বল্প আয়ের মানুষের বসবাসের জন্য অনুপযোগী। ফলে মানুষ ঝুঁকছে ফিলাডেলফিয়া শহরের দিকে।
কলরাডোর ডেনভার সিটি বসবাসের জন্য সুন্দর হলেও বাড়ি ভাড়া ও অন্যান্য ব্যয় মেটাতে এ শহরের বাসিন্দারা হিমশিম খাচ্ছে। এসব কারণে ডেনভার ছেড়ে একই রাজ্যের কলরাডো স্প্রীং এবং ফোর্ট কলিন্সের দিকে ছুটছে বাসিন্দারা। এছাড়া সিয়াটল অনেক ডেনভারবাসীর পছন্দের শহর।

ইলিনয় এর শিকাগো শহরে ব্যয় বহুল জীবন, প্রপার্টি ট্যাক্স, নিরাপত্তাহীনতা সহ নানা কারণে শহরটি ছাড়ছে মানুষ। এশহরের মানুষ চলে যাচ্ছে সিয়াটল, ফোনিক্স ও পোর্টল্যান্ড শহরে।
এছাড়া নিউইয়র্কের রচেস্টার ও সাইরাকোজ, কানেকটিকাটের নিউ হ্যাভেন মিলফোর্ড, ফ্লোরিডার অরল্যান্ডো, পশ্চিম ভার্জিনিয়ার চার্লসস্টোন, উইসকনসিনের মিলওয়াকি, টেক্সাসের হিউষ্টন, ইলিনয় এর রকফোর্ড, নর্থ ক্যারোলিনার জ্যাকসন ভিল, ম্যারিল্যান্ডের ম্যালিসবারি, মিশিগানের ডেট্রয়েট, নিউজার্সির ভাইনল্যান্ড ও আটলান্টিক সিটি, অরিগনের ইউজিন, নেব্রাস্কার ওমাহা, আলাবামার মন্টগোমারিও মোবাইল, ওহাইয়োর ডেইন, লুইসিয়ানার ব্যাটন রোজ, ক্যালিফোর্নিয়ার চিকো, পেনসিলভেনিয়ার জনসটাউন, আরকানসাসের লিটল রক, আলাস্কার ফেয়ারব্যাংকস ও ওয়াশিংটন স্টেটের স্পোকেইন শহর ছাড়ছেন আমেরিকানরা। তারা ছুটছেন পার্শ্ববর্তী বা দূরবর্তী শহরে। সবারই শহর ছাড়ার রয়েছে একাধিক কারণ। এসব কারণের অন্যতম হচ্ছে আয়ের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ জীবনধারণ ব্যয়।

যে সব শহরের দিকে ঝুঁকছে মানুষ :

সাম্প্রতিককালে যে ১০টি শহরে বসতি গড়ার জন্য আমেরিকানরা বেশী ঝুঁঁকছে সেগুলো হলো অ্যারিজোনার ফোনিক্স, ক্যালিফোর্নিয়ার স্যাক্রামেন্টু, নেভাদার লাসভেগাস, জর্জিয়ার আটলান্টা টেক্সাসের অস্টিন ও ডালাস, অরিগনের পোর্টল্যান্ড ও ফ্লোরিডার টেম্পা। ইউএস নিউজ এন্ড ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসের জন্য সবচেয়ে ভালো ১০টি শহর হচ্ছে টেক্সাসের অস্টিন, কলরাডোর ডেনভার ও কলরাডো স্প্রীং, আরকানসাসের ফেইটভিল, আইয়োয়ার ডেস মইনিস, মিনেসোটার মিনিয়াপলিস সেন্ট পল, ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো ও অরিগণ রাজ্যের পোর্টল্যান্ড। যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে সুন্দর শহর প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ রাজ্য হাওয়াইয়ের হনলুলু। আর সবচেয়ে খারাপ শহর হচ্ছে ম্যারিল্যান্ডের বাল্টিমোর। যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে ধনী শহর হচ্ছে ক্যালিফোর্নিয়ার এ্যাথারটন। অপর দিকে সবচেয়ে বেশী বিলিওনিয়ারের বসবাস নিউইয়র্ক সিটিতে। সবচেয়ে সুখী শহর ম্যারিল্যান্ডের কলাম্বিয়া। খুনের শহর হচ্ছে শিকাগো। আর সবচেয়ে গরীব শহর হচ্ছে ইলিয়নস রাজ্যের সেন্টার ভিল।

মানুষ কেন নিজ শহর ছেড়ে যায় :

এক শহর ছেড়ে অন্য শহরে বসতি গড়ার পেছনে রয়েছে নানাবিধ কারণ। নিজের মতো করে বাসস্থান তৈরী, পারিবারিক কারণ, নতুন চাকরী বা বদলী, সস্তায় বাড়ি তৈরী বা ভাড়া নেয়া, বাড়ির কাছাকাছি কর্মস্থল, সন্তানের শিক্ষার পরিবেশ, পড়াশুনার সুযোগ, বৈবাহিক কারণ, নিরাপদ প্রতিবেশ, কাজের সন্ধান, প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও জলবায়ূ, স্বাস্থ্য সম্পর্কিত নানা কারণে মানুষ অনেকদিনের চেনা শহর ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় মধ্যবিত্ত শ্রেনীর মানুষের বসবাস যুক্তরাষ্ট্রে। একটা সময় ছিলো বড় শহরগুলোতে ভালো আয়ের চাকরি সুযোগ মানুষকে আকৃষ্ট করতো। কিন্তু আয়ের সাথে ব্যয় সাযোজ্যপূর্ণ না হওয়ায় এখন এসব শহরে বসবাস করতে অনাগ্রহী হয়ে উঠছে মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রের ‘রেডফিন মাইগ্রেশন রিপোর্ট’ অনুযায়ী শহরের প্রায় ২৫ শতাংশ বাসিন্দা উন্নত জীবনের জন্য অন্য শহরে যেতে আগ্রহী। চলতি বছর করোনা মহামারিতে স্বাভাবিক জীবন যাত্রা অচল হয়ে পড়ে। চলমান আর্থিক মন্দা ও বেকারত্ব সহসা কাটবে এমন কোন সম্ভাবনা নেই। বড় বড় শহরগুলোতে দীর্ঘদিনের ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে। মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবার পারছে না ক্ষুদ্র ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের ভাড়া পরিশোধ করতে । বাড়ি ভাড়া বাকি পড়েছে অনেকের। আর এসব কারণেই এ বছর শহর ছাড়ার সংখ্যা সৃষ্টি করেছে নূতন রেকর্ড।

বাংলাদেশী অভিবাসীরাও নিউইয়র্ক ছাড়ছেন :

যুক্তরাষ্ট্রে সিংহভাগ বাংলাদেশী অভিবাসীর বসবাস নিউইয়র্কে। পারিবারিক ভিসা বা অন্যান্য সূত্রে আমেরিকা এসে তারা প্রথমেই পা রাখেন নিউইয়র্কে। পরে অনেকেই পাড়ি জমান অন্যান্য রাজ্যে। তারপরও বেশীর ভাগ থেকে যান নিউইয়র্কে। ব্যয়বহুল জীবন চালাতে হিমশিম খেতে হয় তাদেরকে। চাকুরীর সুযোগ, যাতায়াত সুবিধা, স্বদেশী হালে চলাফেরা করা সবকিছু মিলিয়ে মানিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে নিজেকে। নিউইয়র্ক সিটিকে মনে করেও লিটল বাংলাদেশ। তারপর উন্নত জীবিকার টানে তারা ছেড়ে যান নিউইয়র্ক। বিগত দু’দশকে এ ধারা অব্যাহত রয়েছে। এসময়টায় বাংলাদেশী অভিবাসীদের বড় একটি অংশ নিউইয়র্ক ছেড়ে পাড়ি জমিয়েছেন মিশিগানে। অনেকে গেছেন জর্জিয়া, ফ্লোরিডা সহ অন্যান্য রাজ্যে। সম্প্রতি কয়েক বছর যাবত নিউইয়র্ক সিটির অনেক বাংলাদেশী বসতি স্থাপন করে চলেছেন আপষ্টেট নিউইয়র্কের বাফেলো শহরে। বাড়ীর মূল্য ও ভাড়া অত্যন্ত কম হওয়ায় আকৃষ্ট হচ্ছেন বাংলাদেশীরা। করোনা মহামারির কারণে সম্প্রতি অধিক সংখ্যক বাংলাদেশী ঝুঁকছেন বাফেলো শহরের দিকে। ইতোমধ্যে বাফেলো শহরে গড়ে উঠেছে বড় আকৃতির বাংলাদেশী কম্যুনিটি।

Facebook Comments

Posted ৯:০৫ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৩ সেপ্টেম্বর ২০২০

Weekly Bangladesh |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

Dr. Mohammed Wazed A Khan, President & Editor
Anwar Hossain Manju, Advisor, Editorial Board
Corporate Office

85-59 168 Street, Jamaica, NY 11432

Tel: 718-523-6299 Fax: 718-206-2579

E-mail: [email protected]

Web: weeklybangladeshusa.com

Facebook: fb/weeklybangladeshusa.com

Mohammed Dinaj Khan,
Vice President
Florida Office

1610 NW 3rd Street
Deerfield Beach, FL 33442

Jackson Heights Office

37-55, 72 Street, Jackson Heights, NY 11372, Tel: 718-255-1158

Published by News Bangladesh Inc.