শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১ | ৮ কার্তিক ১৪২৮

Weekly Bangladesh নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত
নিউইয়র্ক থেকে প্রকাশিত

জীবনযুদ্ধে অপরাজিত সৈনিক কবি শওকত আলম

এম. হেফজুর রহমান   |   বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১

জীবনযুদ্ধে অপরাজিত সৈনিক কবি শওকত আলম

শুরুতেই ডা. লুৎফর রহমানের একটা বাণী মনে পড়ে গেল তা হলো- জীবনের মালিক তুমি, দুঃখ বেদনা ও অভাবকে বাঁধা মনে না করে সেগুলোকে আর্শীবাদ মনে করে ধরে নাও। কিছুই তোমার গতিকে রোধ করতে পারবে না। যেমন করে হোক তুমি বড় হবেই। বুক ভেঙ্গে গেছে ভয় নাই।ভাঙ্গা বুক নিয়ে আল্লাহ ভরসা করে দাঁড়াও। মানুষ মাত্রই সংগ্রামশীল বৈচিত্র্যময় জীবনের অধিকারী। আজ আমি যে মানুষটির জীবন কাহিনী আলোচনা করবো তিনিও একজন সংগ্রামী মানুষ। বৈচিত্র্যময় তার জীবন।নেশায় তিনি একজন কবি, পেশায় তিনি একজন চিকিৎসক।

হ্যা আমি কবি শওকত আলমের কথা বলছি। ১৯৭৩ সালের ২০ অক্টোবর সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার অন্তর্গত গাবুরা (খোলপাটুয়া) গ্রামের সরদার বাড়িতে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে তিনি জন্ম গ্রহন করেন। নানা ঘাত প্রতিঘাতের কারণে পরিবারটি তখন অর্থনৈতিক ভাবে বিধ্বস্ত। নিদারুণ দারিদ্রতার অক্টোপাসের জালে বন্দি। শওকত আলমের বয়স যখন সাত আট বছর তখন তিনি তৃতীয় শ্রেণীতে পড়েন। সে সময় তার জীবনে ঘটে যায় এক চরম বিপত্তি। অর্থাৎ এ সময় তার আব্বা আবুল কাশেম লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হয়ে ১৯৮০ সালে ২ রা রমজান মাসে ডুমুরিয়া উপজেলা চুকনগর বাজারে ইন্তেকাল করেন। সংসারে নেমে আসে অমাবস্যার অন্ধকার। তার মা আপিরুন্নেছা (নেনী) সংসারের হাল ধরেন। পরের বাড়িতে কাজ করে, এমন কি মাঝে মাঝে কঠোর পরিশ্রমও করতে হয় বেঁচে থাকার তাগিদে। তবুও তার চোখে ছিল এক সমুদ্র স্বপ্ন। সন্তানদের তিনি লেখাপড়া শেখাবেন।

মায়ের স্বপ্ন পূরণ করতে গিয়ে শত দারিদ্রতার মাঝেও শওকত আলম লেখাপড়া চালিয়ে যেতে লাগলেন। অভাবের কারণে তিনি ঘর ছড়লেন। জীবনের দীর্ঘ ১২ টি বছর শওকত আলম লজিং থেকেছেন। এর মধ্যে ৩৫টি বাড়ির মালিক তাদের মেয়েকে বিয়ের জন্য শওকতকে প্রস্তাব দেন।তিনি সবিনয়ে তা প্রতাখ্যান করেন এবং এভাবেই তাকে এ বাড়ি ও বাড়ি লজিং থাকতে হয়েছে। তখন তার একটাই স্বপ্ন ছিল,তাকে লেখাপড়া শিখে মানুষের মত মানুষ হতে হবে। মায়ের দুঃখ দূর করতে হবে।মাকে তিনি ভিষণ ভালোবাসতেন। মায়ের অনন্ত তিনি কয়েকটি স্বপ্ন পূরণ করেছেন।

তিনি এম.এ পাশ করেছেন। শুধু তাই নয়, তিনি খুলনা হোমিও প্যাথিক মেডিকেল কলেজ থেকে ডি.এইচ.এম.এস, এবং খুলনা আইন মহাবিদ্যালয় থেকে এল.এল.বি ডিগ্রীও অর্জন করেছেন। শওকত আলমের আজকের এই সাফল্যের পেছনে সবচেয়ে বেশী অবদান যিনি রেখেছেন, তিনি হলেন তার মা আপিরুন্নেছা নেনী বেগম। কবি শওকত আলমের জীবনটা ব্যথা আর বেদনায় ভরা। ১৯৭৭ সালে তাকে আব্বা আম্মার সঙ্গে শ্রেফ অর্থনৈতিক কারণে জন্মভূমি গাবুরা ছেড়ে চলে আসতে হয় ডুমুরিয়া উপজেলা নরনিয়া গ্রামে।এখানে এসে তার আশ্রয় হয় সরদার বাড়িতে।
কবি শওকত আলম ছাত্রজীবনে রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন।এই রাজনীতি করতে গিয়েও তাকে বহুবার ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে পড়তে হয়। এমন কি কয়েকবার তার জীবনটা হুমকির মধ্যে পড়ে যায়। কিন্তু সেই হুমকির মধ্যে থেকেও তিনি বেরিয়ে এসেছেন। বেরিয়ে তো আসবেনই, কারণ তার সাথে ছিল তার মায়ের অসীম দোয়া। তিনি এক সময় ছিলেন সত্যের পথের পথিক এক সৈনিক। তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে এক প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর।সে কণ্ঠস্বরে আছে বজ্রের মতো তেজস্বিতা।

প্রত্যেক মানুষের জীবনে প্রেম আসে। প্রেম হীন মানুষ পৃথিবীতে আছে এ কথা বিশ্বাস করতে খুব কষ্ট হয়। ১৯৩৬ সালের ১২ ডিসেম্বর ব্রিটেনের অষ্টম এডওয়ার্ড তার এক রেডিও বক্তৃতায় বলেছিলেন “যে নারীকে আমি ভালোবাসি তার সাহায্য সমর্থন ছাড়া আমি যেমনটি চাই তেমনিভাবে নৃপতিরুপে আমার দায়িত্বের গুরুভার বহন এবং আমার কর্তব্য পালন আমার সাধ্যের অতীতে বলে আমার মনে হয়েছে।” আর লিউওয়ালাম বলেছেন ” প্রেমের সুখ হলো কর্মেঃ অপরের জন্য কাজ করার ইচ্ছাই ভালোবাসার প্রমান।” কবি শওকত আলমের জীবনেও প্রেম এসেছে ফাগুণ ধারার মতো। ১৯৮৮ সালে যখন তিনি মাধ্যমিক পাস করেছেন তখন এক মেয়ের প্রেমে তিনি সাড়া দেন।

দীর্ঘ আট বছর ধরে সে প্রেম চললেও নানা কারণে সেই মেয়েকে তিনি জীবন সাথী হিসেবে পেতে ব্যর্থ হনন। যেমনি ব্যর্থ হয়েছিল কবি কাজী নজরুল ইসলাম, ব্যর্থ হয়েছিলেন ভিক্টর নাগাসহ আরো অনেকে। প্রেমে ব্যর্থতা আছে বলেই কথাশিল্পী শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় লিখেছিলেন ” “বড় ভালোবাসা শুধু কাছে টানে না, দূরেও সরিয়ে দিতে জানে।” কবি শওকত আলম বিয়ে করেছেন অন্য এক মেয়েকে। বিয়ের আগে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব করেছিলেন, কিন্তু হয়নি। হয়তো এখানে বাঁধসেধেছে চরম দারিদ্রতা। তার স্ত্রী লাকী আলম তার দারিদ্র মেনে নিয়েই তার কষ্টের ভাগীদার হতেই তার সঙ্গে ঘর বেঁধেছিল। তিনি তার দারিদ্রকে ভয় পাননি ; কারণ তিনি জানতেন কাজী নজরুল ইসলামের সেই বাণীটি তা হলো – ” হে দারিদ্র তুমি মোরে করেছ মহান। তুমি মোরে দানিয়াছ খ্রীস্টের সম্মান কন্টক মুকুট শোভা।”

কবি শওকত আলম বর্তমানে বটিয়াঘাটা উপজেলা ৭নং আমীরপুর ইউনিয়নের বাইনতলা বাজারে বসবাস করছেন। এখানেই তিনি তার চিকিৎসক পেশার চেম্বার করেছেন। তার শ্বশুরও তাকে ডুমুরিয়ার টিপনা সেতুর কাছে রসুপুরে ৪২ শতক জায়গা দিয়েছেন। সেখানে বাড়ির আছে। কিন্তু সেখানে তিনি যাননি। আর তার আব্বার কাছ থেকে তিনি যে জায়গা পেয়েছিলেন তা তিনি একটি মসজিদে দান করে দিয়েছেন। কর্মজীবনে তিনি গ্রন্থ প্রকাশের জন্য যে টাকা সংগ্রহ করেছিলেন সমুদয় অর্থ মসজিদে টাইলস এবং একটি টিউবওয়েল বসানোর জন্য দান করেন। কারণ তিনি আল-কোরআনের মহান সেই বাণীটি স্মরণ করেন, তা হলো ” যারা সম্পাদ বিপদে দান করে,রাগ দমন করে, লোকদের ক্ষমা করে, আল্লাহ এমন হিতাকারীদের ভালোবাসেন।”

কবি শওকত আলম’র জীবন আজ হীরক জ্যোতিময় না হলেও স্বর্ণ উজ্জ্বল তো বটেই। তার এক ছেলে এক মেয়ে নিয়ে শান্ত নদীর স্রোতের মতো ঘাতপ্রতিঘাতের গতিবেগে বয়ে চলেছে সম্মুখ পানে। সেখানে বিলাসিতা হয়ত নেই কিন্তু আছে অফুরন্ত সুখ। দুঃখ যে একেবারে নেই তা বলবো না, তবে সে দুঃখকে জয় করে সেখানে প্রবাহিত করতে পেরেছেন সুখের বারিধারা। আর এ সবই সম্ভব হয়েছে তার পরিশ্রম ও অধ্যাবসায় এবং মায়ের দোয়ার কারণে, মায়ের দোয়া তার সাথে আছে, এ পৃথিবীতে তার কষ্ট কিসের ? তার মা বেঁচে নেই। কবি শওকত আলম’র মা ২০১২ সালের ২৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় নিজ বাভবনে মৃত্যু বরণ করেন। কবি আল্লামা ইকবালের সুরে সুর মিলিয়ে তিনিও মনে করেন ” দৃঢ় বিশ্বাস, অনবরত প্রচেষ্টা এবং বিশ্বজয়ী প্রেম, জীবন যুদ্ধে এই হলো মানুষের হাতিয়ার।”

কবি শওকত আলম দারিদ্রতার কাছে কখনো মাথানত করেননি। কখনো কোন অন্যায়ের কাছে তিনি মাথানত করেননি। তাই বি,এ পাস করার পরেও অর্থের অভাবে যখন দিশেহারা তখন তিনি প্রায় ৬ মাস এই খুলনা শহরে রিকশা চালিয়েছেন জীবন বাঁচার তাগিদে। জনগণের জন্য একটি নতুন ভবিষৎ রচনা করতে সাহিত্যের ভূমিকা অগ্রগণ্য। এই উপলব্ধিকে আদর্শ মনে করে শওকত আলম ছাত্র জীবনেই কবি হওয়ার স্বপ্ন দেখেন বিশ্ববিখ্যাত কবিদের কবিতা পড়তেন আর কবিতা লেখার চেষ্টা করতেন।

সেই যে দার্শনিক কবি আল্লামা ইকবাল বলেছেন, “কবি’রা সমাজ দেহের চক্ষু, বাগানের মুক্ত পাখি এবং সত্যের দর্শন।” এবাক্যই একদিন তাকে কবি হওয়ার অনুপ্রেরণা যোগায়।সত্যি সত্যিই তিনি একদিন কবি হয়ে উঠলেন। তার কবিতার সংখ্যা প্রায় তিন হাজারের মতো। তার প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় ১৯৮৭ সালে” পাঁপড়ী” ঈদ সংখ্যা, সম্পাদক ছিলেন এ,এফ,এম কামাল হোসেন, ঝিকরগাছা,যশোর।

তার বাণীর সংখ্যা আঠারো শতেরও বেশী। তিনি প্রায় দীর্ঘ ৩৪ বছর ধরে পত্রপত্রিকায় লিখছেন। তিনি লিখেছেন, ইনকিলাব, সোনার বাংলা, সংগ্রাম,পূর্বাঞ্চল,জন্মভূমি, প্রবাহ,কিশোর কন্ঠ, অগ্রপথিক, সবুজপাতা,সপ্তডিঙ্গা প্রভাতফেরী, ধূপছাায়, আশ্রম,মোলাকাত ডটকমসহ অনেক পত্রপত্রিকায় । কবি শওকত আলমের সাড়া জাগানো কাব্যগ্রন্থ ( ক) নিঝুম রাতে চাঁদের দেশে (খ) বিচিত্র রঙবাসর (গ) প্রেমের কবিতা গুচ্ছ (ঘ) ংড়হম ড়ভ ংরষাবৎ ংরষবহপব (ঙ) অপরাজিতা। আধ্যাত্মিক গ্রন্থঃ- (চ) বাণী সমগ্র (ছ) বাণী উপহার (জ) বাণীঅলংকার। অচিরেই আরো একটি গ্রন্থ প্রকাশিত হতে যাচ্ছে।

আসলে তার পরিশ্রম ও অধ্যাবসায়ই তাকে একজন কবি হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে। সেই ডেলকার্নগী বলেছেন, ” সব কিছুরই মূল উৎস আসে আকাঙ্খা হতে, আর প্রত্যেকটি আন্তরিক প্রার্থনাই খোদা মজ্ঞুর করে থাকেন। ” বর্তমানে তিনি “লোনাভূমি” সম্পাদক, গাবুরা ওয়েলফেয়ার সোসাইটির চিকিৎসা বিষয় উপদেষ্টা। সাহিত্য সম্পাদকঃ সুবর্ণ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক পরিষদ,রূপসা,খুলনা। মিডিয়া সম্পাদকঃ প্রেরণা সাহিত্য সাংস্কৃতিক সংসদ,খুলনা।

সভাপতি : জাতীয় সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক মহল, খুলনা।

Posted ৯:৩৮ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১

Weekly Bangladesh |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

গল্প : দুই বোন
গল্প : দুই বোন

(1509 বার পঠিত)

স্মরণে যাতনা
স্মরণে যাতনা

(743 বার পঠিত)

মানব পাচার কেন
মানব পাচার কেন

(491 বার পঠিত)

advertisement
advertisement
advertisement

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
Dr. Mohammed Wazed A Khan, President & Editor
Anwar Hossain Manju, Advisor, Editorial Board
Corporate Office

85-59 168 Street, Jamaica, NY 11432

Tel: 718-523-6299 Fax: 718-206-2579

E-mail: weeklybangladesh@yahoo.com

Web: weeklybangladeshusa.com

Facebook: fb/weeklybangladeshusa.com

Mohammed Dinaj Khan,
Vice President
Florida Office

1610 NW 3rd Street
Deerfield Beach, FL 33442

Jackson Heights Office

37-55, 72 Street, Jackson Heights, NY 11372, Tel: 718-255-1158

Published by News Bangladesh Inc.